Mokim Obostai Sorik Qurbani - মুক্বীম অবস্থায় শরীক কুরবানী - Akhtarul Aman - আখতারুল আমান [www.islamerpath.wordpress.com]

মুক্বীম অবস্থায় শরীক কুরবানী বিষয়ে সমাধান

রচনায়ঃ
আখতারুল আমান বিন আব্দুস সালাম
(লিসান্স, মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় সঊদী আরব)
দাঈ, ইসলামী ঐতিহ্য সংরক্ষণ সংস্থা, জাহরা শাখা, কুয়েত।

সম্পাদনাঃ
আকরামুজ্জামান বিন আব্দুল সালাম
(লিসান্স, মদীনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় সঊদী আরব)

বইটি ডাউনলোড করুন [page-41, size-2.3MB]

কুরবানী সম্পর্কিত সবগুলো বই পেতে এখানে ক্লিক করুন।

বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ বইটি সম্পূর্ণ www.islamerpath.wordpress.com কতৃর্ক স্ক্যানকৃত। বইটি ভালো লাগলে নিকটস্থ লাইব্রেরী থেকে ক্রয় করার প্রতি অনুরোধ করছি। কোন প্রকাশক বা লেখকের ক্ষতি করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। বরং বইটির বহুল প্রচার ও ইসলামের দাওয়াত প্রচারই আমাদের উদ্দেশ্য। বিশেষ অনুরোধ বইটি কেউ এডিট ও প্রিন্ট আউট করবেন না। বইটি যারা শেয়ার করতে চান তারা অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটের ডাউনলোড লিংক দিবেন।

 

Advertisements

4 comments on “মুক্বীম অবস্থায় শরীক কুরবানী বিষয়ে সমাধান

  1. এত শর্ত সাপেক্ষ বই গুলা ইন্টারন্যাটে আপলোড না করাই উত্তম। এত কড়া শর্তদিয়ে মানুষদেরকে ছওয়াবের পরিবর্তে গুনাগার বানাইতেছেন আর একটা অংশ আপনারাও পাবেন আমার ধারনা।

    • আসসালামু আলাইকুম, আপনার কমেন্টের উত্তর দেওয়ার আগে আমাদের ওয়েবসাইটের বই এর নিচের শর্তটা দিলাম।

      ““ বিশেষ দ্রষ্টব্যঃ বইটি সম্পূর্ণ http://www.islamerpath.wordpress.com কতৃর্ক স্ক্যানকৃত। বইটি ভালো লাগলে নিকটস্থ লাইব্রেরী থেকে ক্রয় করার প্রতি অনুরোধ করছি। কোন প্রকাশক বা লেখকের ক্ষতি করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। বরং বইটির বহুল প্রচার ও ইসলামের দাওয়াত প্রচারই আমাদের উদ্দেশ্য। বিশেষ অনুরোধ বইটি কেউ এডিট ও প্রিন্ট আউট করবেন না। বইটি যারা শেয়ার করতে চান তারা অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটের ডাউনলোড লিংক দিবেন। ””

      শর্তটা কড়া হলো কিভাবে বুঝলাম না। শর্তের মধ্যে শুধু ‍কিছু বিশেষ অনুরোধ করেছি তার মধ্যে একটি হলো “এডিট করবেন না”। এডিট না করতে বলার কারণ বইগুলো আমরা হুবুহু স্ক্যান করেছি, এতে কেউ যেন নিজেদের কোন লেখা যোগ না করে, নিজেদের লেখা যোগ করলে লেখকের লেখার উদ্দেশ্য বদলে যেতে পারে এবং লেখককে পাঠক ভুল বুঝতে পারে। আর তাছাড়া কথা হলো আপনি এডিট করবেনই বা কেন? আপনি কি লেখকের লেখায় সন্তুষ্ট নন? আরেকটি শর্ত দিয়েছি তাহলো “প্রিন্ট করবেন না” । প্রিন্ট করলে পাবলিকেশন এবং লেখক উভয়ের অনুমতি প্রয়োজন। তাছাড়া এতে করে পাবলিকেশনস এর ক্ষতি হতে পারে। বইটি প্রিন্ট করাই হয়েছে যেকোন পাবলিকেশনস থেকে। তাছাড়া বই গুলো বাজারে পাওয়া যায় আমরা শর্তের মধ্যে তা উল্লেখ করেছি, আপনার দরকার হলে আপনি বইটি কিনে নিবেন। তাছাড়া বই কিনার জন্য এখন যোগাযোগের মাধ্যমও সহজ হয়ে গেছে।

      আমরা শর্তের মধ্যে প্রথমেই লিখেছি “কোন প্রকাশক বা লেখকের ক্ষতি করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়। বরং বইটির বহুল প্রচার ও ইসলামের দাওয়াত প্রচারই আমাদের উদ্দেশ্য।” এখনই আপনারা যদি বইটি এডিট ও প্রিন্ট আউট করেন তাহলে প্রকাশক ও লেখকের ক্ষতি হবে না লাভ হবে? কেননা প্রকাশক আগেই বইটি প্রকাশ করেছে।

      আমরা আরো একটি শর্ত দিয়েছি তাহলো “আমাদের ওয়েবসাইটের ডাউনলোড লিংক দিবেন” এটা দেওয়ার উদ্দেশ্য হলো বইটি কতবার ডাউনলোড হয়েছে তা দেখার জন্য। কেননা আপনি যদি বইটি ডাউনলোড করে আপনার সার্ভারে আপলোড করেন তাহলে আপনার ওয়েবসাইট থেকে কত বার ডাউনলোড হয়েছে তা আমরা জানবো না। আমাদের সঠিক ডাউনলোড পরিসংখ্যানটা জানতে পারবো না। এক কথায় ডাউনলোড পরিসংখ্যানটা জানার জন্য ডাউনলোড লিংক দিতে বলেছি।

      এই তিনটি শর্ত দিলাম আর তার বিস্তারিত বললাম। শর্ত গুলো শুধুমাত্র আমরা যেসব বই স্ক্যান করেছি তার নিচে দিয়েছি। এরপর আমাদের বলেন কিভাবে কড়া শর্ত হল।

      আপনি কমেন্টে লিখছেন ““ এত কড়া শর্তদিয়ে মানুষদেরকে ছওয়াবের পরিবর্তে গুনাগার বানাইতেছেন ””
      আমরা তো ডাউনলোড করতে নিষেধ করি নাই। আমরা সাইটে কুরআন, হাদীস, ও বিষয়ভিত্তিক বই দিয়েছি আর এগুলো পড়ে কোন মানুষ গুনাগার হবে না বরং হেদায়াতের পথে অটল থাকবে।

      ভাই আপনাকে কিছু কথা বলি, আমরা যেসব বই আপলোড করি তা একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য। আর আপলোড করতে হলে কিছু নিয়ম মেনে চলতে হয় যা ভালো ভালো ওয়েবসাইট যেমন islamhouse.com, quraneralo.com, waytojannah, islaminonesite.wordpress.com ইত্যাদি ওয়েবসাইট মেনে চলে। আপলোড করা হচ্ছে যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করে কম্পিউটার বা মোবাইলে বই পড়ে তাদের জন্য। যারা হার্ড কপি পড়ে তাদের উদ্দেশ্যে শর্তের মধ্যে বলা হয়েছে বইগুলো ভালো লাগলে নিকটস্থ লাইব্রেরি থেকে ক্রয় করার জন্য। আর আপনি আপলোড করতে নিষেধ করতেছেন। তাও আবার ইসলামিক বই। আসলে আপনি শর্তটা সুচিন্তায় পড়েননি। পড়লে ব্যাপারটা বুঝতেন, আর না বুঝে নিজের রাগ ঝারলেন একটা কমেন্ট করে। তাও আবার উল্লেখ করলেন শর্ত দেওয়াতে আমরা ছওয়াবের পরিবর্তে গুনাগার হবো, আরো লিখলেন এটা আপনার ধারণা। আর আল্লাহ তা’আলা বলেন সূরা-হুজরাত, আয়াত-১২, “মুমিনগণ, তোমরা অনেক ধারণা থেকে বেঁচে থাক। নিশ্চয় কতক ধারণা গোনাহ।”
      সুতরাং বুঝে দেখেন কার গোনাহ হয়েছে। ওয়েবসাইটের নাম দিয়েছেন “কুরআন সুন্নাহ” আর কমেন্ট এর মধ্যে কুরআন সুন্নাহর সম্বলিত বই আপলোড করতে নিষেধ করলেন।

      আল্লাহ আপনাকে ও আমাদের সবাইকে ক্ষমা করুন, আমীন।

  2. Pingback: আল্লাহ 'র বিধান ও হাদিস সমূহ

  3. Pingback: মুক্বীম অবস্থায় শরীক কুরবানী বিষয়ে সমাধান | modinarpoth

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s